১০ বছর ধরে ফুটবলের রাজত্বটা লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দখলে। বিশ্বসেরা ফুটবলারের পুরস্কার এ দুজনই বারবার জিতছেন। এর মাঝে নেইমার, আঁতোয়ান গ্রিজমান, ফ্রাঙ্ক রিবেরির মতো অনেকেই চেষ্টা করেছেন, কিন্তু এ শ্রেষ্ঠত্বে ভাগ বসাতে পারেননি। এঁদের তালিকায় থাকতে পারতেন এডেন হ্যাজার্ডও। কিন্তু স্বার্থপর হতে পারছেন না বলেই নাকি সেরা হতে পারছেন না হ্যাজার্ড!

গত চার বছরে তিনবার ব্যালন ডি’অরের সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন বেলজিয়ান ফরোয়ার্ড। প্রতি মৌসুমেই ভাবা হয়, এবার হয়তো মেসি-রোনালদোর রাজত্বে ভাগ বসাবেন হ্যাজার্ড। হোসে মরিনহো তো ২০১৫ সালেই বলেছিলেন, এ দুজনের কাতারে আছেন চেলসির প্রাণভোমরা। কিন্তু সে পথে আর এগোতে পারেননি হ্যাজার্ড। এর কারণ হিসেবে খেলোয়াড়ের বাবা একটা যুক্তি দিয়েছেন, হ্যাজার্ড অন্যদের কথা বেশি ভাবেন। এটাই তাঁর সেরা হওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

হ্যাজার্ডও সেটা স্বীকার করেছেন। তাঁর ব্যক্তিত্ব ও খেলার ধরনই নাকি বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় হতে দিচ্ছে না, কিংবা সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে দিচ্ছে না, ‘তিনি (বাবা) সব সময় এটা বলেন। সম্ভবত এটা সত্যি।’ মেসি-রোনালদোর মতো হলে যে মানসিকতা বদলাতে হবে, সেটা জানাচ্ছেন হ্যাজার্ড, ‘আমার মনে হয়, বর্তমান ফুটবলে ব্যালন ডি’অর জিততে চাইলে কিংবা সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে চাইলে স্বার্থপর হতে হবে। কিন্তু আমি অমন নই, একদম নই। আমি ঠিক আমার মতো।’

চেলসির হয়ে এ মৌসুমটা ভালো কাটেনি হ্যাজার্ডের। মাত্র ১২ গোল ও ৪টি এসিস্ট করেছেন এবারের লিগে। তবে আজ এফএ কাপের ফাইনালে দলকে জেতাতে পারলে এবং বেলজিয়ামের হয়ে বিশ্বকাপে ভালো কিছু করতে পারলে ব্যালন ডি’অর জয়ের পথে হয়তো অনেকটাই এগিয়ে যেতে পারবেন। অন্তত প্রথমবারের মতো শীর্ষ তিনে তো জায়গা করতেই পারেন!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here