রাশিয়া বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা কেমন করবে? এ প্রশ্নের উত্তর নির্ভর করে উত্তরদাতার ওপর। নিরপেক্ষ সমর্থকের উত্তরের সঙ্গে মিলবে না ব্রাজিল সমর্থকের উত্তর। আর্জেন্টিনার সমর্থকের সঙ্গে তো কারও উত্তরই মিলবে না। তবে একটি বিষয়ে সবাই একমত হবেন, আর্জেন্টিনার ভাগ্য নির্ভর করবে গঞ্জালো হিগুয়েইনের ওপরও!

বিস্ময় জাগতেও পারে, সবাই যেখানে লিওনেল মেসির কথা বলছেন, সেখানে হিগুয়েইনের ওপর নির্ভর করছে আর্জেন্টিনার ভাগ্য! এতে অবশ্য একটা কিন্তু আছে। মেসির ওপর সবাই দায়িত্ব দিচ্ছেন ভরসা থেকে, আর হিগুয়েইন প্রসঙ্গটা আসে হতাশা থেকে। ২০১৪ বিশ্বকাপ ফাইনালে জার্মানির কাছে অতিরিক্ত সময়ের গোলে। কিন্তু ম্যাচটা ৯০ মিনিটেই শেষ হতে পারত যদি হিগুয়েইন তাঁর কাজটা ঠিকভাবে করতেন। সেদিন ম্যাচে বেশ কয়েকটি সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেছেন এই স্ট্রাইকার।

এ নিয়ে কম কথা শুনতে হয়নি তাঁকে। আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ না জেতার দায়টাও তার ঘাড়ে ফেলা হয়। কিন্তু হিগুয়েইন সেসব নিয়ে ভাবতে রাজি নন, ‘মারাকানায় আমি যে গোল হাতছাড়া করেছি, সেগুলো নিয়ে মানুষ কথা বলে? আমি এর চেয়েও ভালো গোল পেয়েছি, আমার মেয়ে ও স্ত্রী। টিএনটিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হিগুয়েইন আরও বলেছেন ফুটবলই জীবনের সবকিছু নয়, জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো, ফুটবল ছেড়ে দেওয়ার পর যেন ভালো মানুষ হওয়া যায়। কিছু মানুষ যেন থাকে যারা তাকে ভালো বাসে। যেসব মানুষ আপনার গোল উদ্‌যাপন করে, তার এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ নয়।’

সাক্ষাৎকারে আরেকটি চমক জাগানো তথ্য দিয়েছেন জুভেন্টাস স্ট্রাইকার। ২০১৬ সালে নাকি অবসরের কথা ভেবেছিলেন তিনি। না, মেসির মতো কোপার ফাইনালে হেরে যাওয়ার সঙ্গে এই চিন্তার কোনো সম্পর্ক নেই। মা অসুস্থ হওয়ায় ফুটবল ছেড়ে দেওয়ার কথা ভেবেছিলেন এই ফরোয়ার্ড, ‘খুব বাজে একটা সময় ছিল। আমি খেলা থামিয়ে দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু মা-ই মানা করল। আমি সিদ্ধান্ত নিলে, খেলা ছেড়ে দিতাম। বাকি সবকিছু (মা ছাড়া) তখন গুরুত্বহীন হয়ে উঠেছিল। আমি মাকে ভালোবাসি, মা-ই আমাকে খেলা চালিয়ে যাওয়ার শক্তি জুগিয়েছেন। বলেছেন, আমাকে এমন কিছু ছাড়তে দেবেন না, যেটা আমি তাঁর জন্য ভালোবাসি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here